image

আজ, শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ,


খাগড়াছড়িতে বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম-অব্যবস্থাপনায় কাজে ধীরগতি

খাগড়াছড়িতে বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্পে অনিয়ম-অব্যবস্থাপনায় কাজে ধীরগতি

ছবি: সিভয়েস

প্রায় সাড়ে ৫শ' কোটি টাকার ‘'তিনটি পার্বত্য জেলায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্প’-এর বাস্তবায়ন কাজে অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার কারণে স্থবিরতা নেমে এসেছে।

২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে শুরু হওয়া এই প্রকল্পের কাজ শেষের মেয়াদ রয়েছে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু ২ বছর ১০ মাস সময় পার হলেও এখনো পড়ে আছে অধিকাংশ কাজ। এদিকে যতটুকু কাজ সমাপ্ত করা হয়েছে সেখানেও রয়েছে ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের জন্য স্থাপিত ১৫ মিটারের বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলো গভীরতায় ৮ ফুট বোরিং করার কথা থাকলেও সেখানে করা হচ্ছে ৫-৬ ফুট। image খুঁটির গায়ে দেওয়া বোরিং চিহ্ন থেকে দুই-আড়াই ফুট কম বোরিং করা হচ্ছে। ফলে ঝড়-তুফানে বৈদ্যুতিক খুঁটি হেলে যাওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। খুঁটির নিচে প্লেট দেওয়ার নীতিমালা থাকলেও সব খুঁটির নিচে প্লেট দেওয়া হচ্ছে না। যেকোন খুঁটি একবার দেবে গেলে বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে যাওয়ার যেতে পারে।

অভিযোগ উঠেছে, লাইন সরু না রেখে কি. মি. বাড়ানোর জন্য অযৌক্তিকভাবে বিনা প্রয়োজনে এক একটি প্রধান সড়কে শতাধিক বার ৩৩ হাজার ভোল্টের বৈদ্যুতিক লাইন এপার ওপার করা হচ্ছে।

সরেজমিনে খাগড়াছড়ি জেলার সবকটি উপজেলার প্রধান সড়কের পাশেই নজরে পড়বে এই খুঁটিগুলো। শুধু দীঘিনালার মধ্য বোয়ালখালী থেকে দাঙ্গা বাজার পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার সড়কে ৭০ বার সড়কের এপার ওপার করা হয়েছে। যেখানে পুরাতন লাইন সড়কের এপার ওপার করা হয়েছিল মাত্র ৫ বার । ৩৩ কেভি লাইন সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়াা সড়ক অতিক্রম না করার বিধান রয়েছে। কিন্তু খাগড়াছড়িতে রহস্যজনক কারণে তা মানা হয়নি। যার ফলে জেলার সবকটি প্রধান সড়কে বৈদ্যুতিক নিরাপত্তাহীনতার ঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে।

এদিকে প্রকল্পের মেয়াদ দুই বছর ১০ মাস শেষ হয়েছে। বাকি রয়েছে আর মাত্র ২ মাস। এই দীর্ঘ সময় পার হলেও কিছু বৈদ্যুতিক খুঁটি বোরিং আর কিছু ইনসুলেটরের কাজ ছাড়া আর কোন কাজ শেষ করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। 

এখনও অধিকাংশ কাজ বাকি পড়ে আছে। এর মধ্যে খুঁটি বোরিং, ইনসুলেটর, তার সংযোজন, ফিটিং, আর্থিং তার, টানা ফুলবেন, ক্রস আর্ম, ৩ ফেইজের ৮৫ টি ট্রান্সফরমার ও সিংগেল ফেইজের ৭২ টি ট্রান্সফরমার স্থাপনের কাজ শুরুই হয়নি।

সরেজমিনে প্রকল্প কাজে নিয়োজিত মাঝি পরিচয়দানকারী আরিফ বলেন, ৮ ফুট নয়, অফিস থেকে বলা হয়েছে ৭ ফুট করে গর্ত (বোরিং) করতে। তবে আমরা অনেকসময় ৭ ফুট গর্ত করতে পারি না ৬ ফুট করেই গর্ত করতে হয়। জায়গা বুঝে কখনো কখনো আরও কম গভীরতার (বোরিং) গর্তও করতে হয়।

তিনি জানান, খুঁটিতে কালো রঙয়ের আস্তরণ দিয়ে যে দাগ দেয়া আছে, সে দাগ সমান গর্ত করার নিয়ম। সেটা হল ৮ফুট। খুঁটির নিচে প্লেট দিতে গেলে অনেক বড় গর্ত করতে হয়, অনেক সময়ের প্রয়োজন। আমরা সব গর্তে প্লেট দেই না"।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্পের খাগড়াছড়ি জেলার মাঠ তত্ত্বাবধায়ক যতী মানিক চাকমা বলেন, আমি মানুষ একজন। সব সময় সব সাইটে থাকতে পারি না। কোথায় কি অনিয়ম হচ্ছে না হচ্ছে তা তথ্য পেলে আমরা সেটা দেখব। পিডিবি থেকে আমরা যতটুকু মালামাল পেয়েছি, আমরা ততটুকু কাজ করেছি। পিডিবি সময়মত আমাদের মালামাল দিতে পারেনি। এছাড়াও বড় বড় ঠিকাদাররা এখানে কখনো আসেন না। উনারা সাব কন্ট্রাক দেয়, সাব কন্ট্রাাকটর আবার সাব কন্ট্রাক দেয়। কোন অনিয়ম হওয়ার তো কথা না। ভাল করে কাজ করতে সবাইকে বলা আছে।

খাগড়াছড়ি পিডিবি নির্বাহী প্রকৌশলী কামাল উদ্দিন বলেন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্প কাজ শেষ করে আমাদের বুঝিয়ে দিলে আমরা সেটা বুঝে নেব। অবশ্যই কাজ ভালভাবে করতে হবে এবং নীতিমালা দেখে কাজ করতে হবে। কোথাও কমবেশি করা যাবে না। তারা যদি কাজে কোন অনিয়ম বা গাফিলতি করে সেটা আমাদের জন্য ক্ষতিকর। আমরা চাই তারা আমাদের ভালমত কাজ বুঝিয়ে দিক, অনিয়ম হলে আমরা কাজ বুঝে নেবো না।

'তিনটি পার্বত্য জেলায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্পে'র খাগড়াছড়ি জেলার দায়িত্বে থাকা নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ সাকিব হোসেন কাজে ধীরগতির বিষয়ে বলেন, মালামাল সময়মত না পাওয়ায় কাজে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটেছে। তবুও আমরা অনেক কাজ শেষ করতে পেরেছি। এই মেয়াদে কাজ শেষ না হলে আরও এক বছরের জন্য কাজের সময়ের মেয়াদ বাড়ানো হবে।

সব খুঁটির জন্য ৮ ফুট করে গর্ত করতে হবে, খুঁটির নিচে অবশ্যই প্লেট দিয়ে তা বোরিং করতে হবে। বিনা কারণে লাইন এপার-ওপার করা যাবে না। কাজে কোন অনিয়ম সহ্য করা হবে না। আমরা অবশ্যই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

সিভয়েস/আই
 

আরও পড়ুন

প্রস্তুত হয়নি ইউএসটিসি-ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল, দিতে হবে চিকিৎসা ব্যয় 

চট্টগ্রাম নগরের বেসরকারি বৃহৎ দুটি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা চালুর সরকারি বিস্তারিত

মুখেই ফ্রন্টফাইটার, জে. হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীদের বেতন 'বন্ধ' ৫ মাস

কোভিড হাসপাতাল ঘোষিত চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল। চট্টগ্রামে করোনা বিস্তারিত

অনাদরে থাকা হাসপাতালটিই এখন শেষ ভরসাস্থল

হাসাপাতাল সড়কেই গাড়ির লম্বা লাইন, মূল ফটকে প্রতিদিন ভেসে বেড়ায় ময়লার ভাগাড়, বিস্তারিত

ক্লিনিকে করোনা চিকিৎসা, সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সংশয়

চট্টগ্রাম মহানগরীর বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ৪ হাজার ১৫৭টি শয্যা থাকলেও বিস্তারিত

চট্টগ্রামে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে বিলবোর্ড, মেয়রের কড়া হুঁশিয়ারি

বন্দর নগরী চট্টগ্রামের প্রধান সড়কে গত কয়েক বছর ধরে নয়নভরে সবুজ প্রকৃতি বিস্তারিত

করোনা/টিউশনি বন্ধে জীবিকা নিয়ে গৃহশিক্ষকদের কপালে চিন্তার ভাজ

টানা লকডাউনে টিউশনি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন গৃহশিক্ষকেরা। করোনা রোধ বিস্তারিত

করোনাকাল/ ইফতার বাজারে নেই সেই জৌলুশ, পাড়ার দোকানে মানছে না নিয়ম

সারাদেশে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) বিস্তার ঠেকাতে লকডাউন চলার মধ্যেই বিস্তারিত

লকডাউনকে পুঁজি করে চার-ছক্কায় আমদানিকারক ও মিল মালিকরা

সম্প্রতি সারাদেশে সরকার ঘোষিত লকডাউনকে পুঁজি করে লাগামহীন দ্রব্য মূল্যের বিস্তারিত

করোনা রোগীর চিকিৎসায় চট্টগ্রামে হচ্ছে ১০ শয্যার আইসিইউ 

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় চট্টগ্রামের সরকারি হাসপাতালে নতুন করে ১০ শয্যার বিস্তারিত

সর্বশেষ

ছবিতে ঘাট শ্রমিকদের কর্মযজ্ঞ, মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি

সাধারণ ছুটি বাতিলের পর নৌ ঘাটগুলোতে পুরো দমে চলছে পণ্য খালাসের কাজ। তবে বিস্তারিত

৫ জুন/ চট্টগ্রামে নতুন শনাক্ত ১৪০

  চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় চারটি ল্যাবের পরীক্ষায় করোনাভাইরাসে বিস্তারিত

১০ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা উপসর্গে দুই ভাইয়ের মৃত্যু

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১০ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনা উপসর্গে বিস্তারিত

করোনাকে জয় করলেন বিআইটিআইডি'র ল্যাব প্রধান

১৪ দিনের হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার পর অবশেষে করোনাকে জয় করলেন চট্টগ্রামের বিস্তারিত

সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত, এই ওয়েব সাইটের যেকোন লিখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনি