image

আজ, বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০ ,


আন্তর্জাতিক তকমা হারাতে বসেছে জহুর আহমেদ স্টেডিয়াম! 

আন্তর্জাতিক তকমা হারাতে বসেছে জহুর আহমেদ স্টেডিয়াম! 

ছবি : আকমাল হোসেন

আসন্ন একমাত্র টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজের ৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। তবে কার্যক্রমে আন্তর্জাতিক হলেও ভেতরের অবস্থা বেহাল। নাজুক অবকাঠামোর পাশাপাশি হারানোর পথে স্টেডিয়ামের দর্শকদের পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা।

২০০৪ সালে অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ দিয়ে আন্তর্জাতিক মানের সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত ভেন্যু হিসেবে স্বীকৃতি পায় জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম। ২০০৬ সালের জানুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে ও টেস্ট ম্যাচ আয়োজনের মধ্য দিয়ে পূর্ণাঙ্গ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পা রাখে স্টেডিয়ামটি। 

২০১১ বিশ্বকাপের সময় মূল প্রবেশ গেইটে লাগানো হয় উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন টিকিট স্ক্যানার ট্রাসটেল গেইট। এখন image সেগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। বর্তমানে গেইটগুলোতে দেখা মিলছে পুলিশের বসার চেয়ার, সিকিউরিটি ভেস্ট। এছাড়া গেইটগুলো কুকুরের আশ্রয়স্থলসহ কর্মচারিদের সাইকেল বেঁধে রাখার নিরাপদ জায়গায়ও পরিণত হয়েছে।
 
এদিকে ২০১১ বিশ্বকাপের সময় ২২ হাজার দর্শকের ধারণক্ষমতা সম্পন্ন মাঠটি সাজানো হয়েছিল রঙ -বেরঙের ১৫ হাজার চেয়ার দিয়ে। সেইগুলোও এখন স্বরূপে নেই। এর মধ্যে প্রায় কয়েক হাজার চেয়ার নষ্ট হয়ে কেবল নাট-বল্টু পড়ে আছে।  তবে অল্প সংখ্যক চেয়ার থাকলেও সেগুলোও ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।


  
এছাড়া কোনো কোনো গ্যালারিতে চেয়ারের অবকাঠামো পর্যন্ত উঠে গেছে। কিছু কিছু চেয়ারে পানি জমে থাকতেও দেখা যায়। এমনকি বেশকিছু টয়লেট দুর্গন্ধময় ও বালু জমে ব্যবহার অনুপযোগী। সব মিলিয়ে একটি আন্তর্জাতিক ভেন্যুর যে পরিবেশ এবং উন্নত অবকাঠামোর থাকা দরকার তা নেই বর্তমানে।

শুরুতে সাগরে ঘেরা এই সুন্দর স্টেডিয়ামটি নগরবাসীর নজর কাড়লেও, তা বেশীদিন স্থায়ী হতে পারেনি। মাঠটিতে রয়েছে অত্যাধুনিক জায়ান্ট স্ক্রীন, ইলেকট্রনিক স্কোর বোর্ড, প্রেসিডেন্ট বক্স, ফ্লাড লাইট, হসপিটালিটি বক্স, বিশাল ড্রেসিং রুম, ট্রাসটেল গেইট, মিডিয়া সেন্টারসহ অনেক কিছু। 

২০১১ বিশ্বকাপে এবং ২০১৪ টি২০ বিশ্বকাপের ম্যাচের অনেক খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছিল এ ভেন্যুতে। এছাড়াও প্রতিবছর এখানে আন্তর্জাতিক বেশকিছু ম্যাচও অনুষ্ঠিত হয়। এই মাঠেই আগামী ০৫ থেকে ১০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে আফগানিস্তান ক্রিকেট দল একটি  টেস্ট ম্যাচ খেলবে।

এরপরই ১৩ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও জিম্বাবুয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের তিনটি ম্যাচ স্টেডিয়ামটিতে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। অথচ স্টেডিয়ামের গ্যালারি দেখলে বোঝার উপায় নেই যে এটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার ভেন্যু।   

চট্টগ্রামেরে এই ভেন্যুটি টাইগারদের লাকি গ্রাউন্ড হিসেবে পরিচিত। যার দরুন ২০১১ সালে আইসিসি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে জয় পায় স্বাগতিক দল। এছাড়া ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপ ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে জয় পায় টিম বাংলাদেশ। এছাড়াও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্টে একটি জয় রয়েছে ভেন্যুটিতে। পাশাপাশি তামিম-সাকিব-মুশফিকদের ব্যক্তিগত অনেক সুখস্মৃতিও রয়েছে।


 
এদিকে ২০১১ সালের পর থেকে স্টেডিয়ামটিতে বড় ধরনের কোন সংস্কার হয়নি। তবে ২০১৪ সালের টি২০ বিশ্বকাপে আংশিক সংস্কার হয়েছিল। বিসিবি থেকে কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে সংস্কারের কথা থাকলেও এবার তাও করতে দেখা যায়নি।

এই বেহাল দশার ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) চট্টগ্রাম ভেন্যু ম্যানেজার ফজলে বারী রুবেল সিভয়েসকে বলেন, ২০১১  বিশ্বকাপের সময় গ্যালারিতে কাঠামো দিয়ে ভালো মানের বিভিন্ন রঙের প্রচুর চেয়ার বসানো হয়েছিল। কিন্তু সেসবের অনেকগুলোই এখন ভাঙাচুড়া। এসব চেয়ারের অনেক দাম, তাই ক্রমান্বয়ে সেসব ঠিক করা হবে।
 
দুইতলার গ্যালারির টয়লেটে বালু ও ময়লার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এখন তো এমন হওয়ার কথা না। ম্যাচকে ঘিরে সেগুলো পরিষ্কার করার কাজ চলছে।  

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিসিবির এক কর্মকর্তা সিভয়েসকে বলেন, এসব দেখভালের দায়িত্ব জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের। তারা এসে একটি তালিকা তৈরি করে এবং যাহাই বাছাই করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবে। এ বিষয়ে ইতোমধ্যে বিসিবির পক্ষ থেকে  জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে চিঠি দিয়ে অবহিত করা হয়েছে।

-সিভয়েস/এসএ

আরও পড়ুন

খানাখন্দে ভরা বাঁশখালী পিএবি সড়ক, ভোগান্তির শেষ নেই

খানাখন্দ আর অসংখ্য ছোট-বড় গর্তে ভরা আনোয়ারা বাঁশখালী পিএবি সড়ক। চলাচলের বিস্তারিত

প্লাস্টিক ফুলের সয়লাবে কদর কমেছে কাঁচা ফুলের

এক সময় পাইকার ব্যবসায়ীরা লাইন ধরত কাঁচা ফুল কেনার জন্য। এখন আর সেদিন নেই। বিস্তারিত

লোকসানে ধুঁকছে কর্ণফুলী পেপার মিল, ‘সম্ভাবনা’ পরিকল্পনায়

বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছে কর্ণফুলী পেপার মিল (কেপিএম)। মুমূর্ষু অবস্থায় পড়ে আছে বিস্তারিত

গুইমারায় বিরামহীন বালু উত্তোলন, ধ্বংসের মুখে ফসলি জমি

গুইমারায় অবৈধ বালু উত্তোলনে সাবাড় হচ্ছে খালবিল। উপজেলায় কোনো বৈধ বালু বিস্তারিত

জেএসসি’র প্রভাব এসএসসি’তে!

আগামী ১ ফেব্রুয়ারী থেকে সারাদেশে এসএসসি সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। বিস্তারিত

দেশীয় চ্যাপা শুটকীর মান ও স্বাদের জন্য অনুজীবসমূহ সনাক্ত 

দেশীয় পুঁটি মাছের প্রক্রিয়াজাতকৃত চ্যাপা শুটকী এর বিশেষায়িত স্বাদ ও বিস্তারিত

১৯ এ সড়কে প্রাণ ঝরেছে ১৮'র চাইতে বেশি

২০১৯ সালে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৫২২৭। ২০১৮ সালে মোট নিহতের সংখ্যা বিস্তারিত

ফাইল বন্দি বাড়ি ভাড়া আইন! বাড়িওয়ালার যাঁতাকলে ভাড়াটিয়া

বাড়ি ভাড়া নিয়ে চট্টগ্রামে নৈরাজ্য বেড়েই চলছে। বছরের শুরুতে বাড়িভাড়া বিস্তারিত

একেক ঋতুতে একেক রূপে বাঁশখালী ইকোপার্ক!

বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ - ঐতিহ্য সংবলিত ও পর্যটক আকর্ষণ করার মতো বহু নিদর্শন বিস্তারিত

সর্বশেষ

নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরি, রেহাই পায়নি ফ্যাক্টরি

নগরীতে অস্বাস্থ্যকর, নোংরা ও পোড়া তেল দিয়ে আচার ও ফাস্টফুড তৈরির বিস্তারিত

চেতনায় মুজিবের উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ

শীতের প্রখর ও তীব্র শৈত্যপ্রবাহ থেকে সুবিধা বঞ্চিতদের বাঁচাতে মুজিববর্ষ বিস্তারিত

দুই শতাধিক অবৈধ দোকান উচ্ছেদ করেছে চসিক

নগরীর চকবাজারের কাচাঁবাজার এলাকার হাসমত উল্লাহ মুন্সেফ লেইন ও কাচাঁবাজার বিস্তারিত

শিক্ষার্থীদের নিয়ে আস্থা'র ভিন্নধর্মী আয়োজন 

পাঠ্যবইয়ের বাইরে বিভিন্ন কবি, সাহিত্যিকের রচনা পড়ে জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধি বিস্তারিত

সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত, এই ওয়েব সাইটের যেকোন লিখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনি