image

আজ, রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯ ,


চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথে বেড়েছে যাত্রী, বগি বাড়ানোর দাবি

চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথে বেড়েছে যাত্রী, বগি বাড়ানোর দাবি

যাত্রীদের ভিড় চট্টগ্রাম- দোহাজারী রেলপথে

চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেলপথে বেড়েছে যাত্রী। সে সাথে বেড়েছে আয়। এ পথে ৫টি বগি নিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে দুই জোড়া যাত্রীবাহী রেল। যাত্রী বাড়ায় গাদাগাদি করে রেলবগিতে যাতায়াত করছেন দক্ষিণ চট্টগ্রামের মানুষ। অনেকে ছাদে উঠে পড়ছেন বগিতে ঠাঁই না হওয়ায়। আবার অনেক বৃদ্ধ ও মহিলা ট্রেনে উঠতে না পেরে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন । 

যাত্রীর চেয়ে রেলের বগি কম হওয়ায় উপচেপড়া ভিড়। এতে নির্ধারিত গন্তব্য যাত্রায় নারী, বৃদ্ধ ও শিশুদের ভোগান্তি চরমে পৌঁছে। রেলযাত্রীদের দাবি, এ ভোগান্তি লাঘবে যদি আরো কয়েকটি বগি বাড়ানো হয় এবং আরও এক image জোড়া ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা করা হয় তাহলে   যাত্রীদের যাত্রা হতো স্বস্তিদায়ক।

রেলওয়ে ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম থেকে দোহাজারি পর্যন্ত ৪৭ কিলোমিটার পথটি রেলের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ রুট। এক সময় চার জোড়া যাত্রীবাহী রেল আসা-যাওয়া করতো। কিন্তু ট্রেনের কোচ ও ইঞ্জিন সংকটের কারণে ধীরে ধীরে সার্ভিস কমিয়ে দেয়া হয়। নব্বইয়ের দশকে সংস্কারবিহীন এ পথে যাত্রীবাহী রেল এক জোড়ায় নামিয়ে আনা হয়। এতে বিপাকে পড়েন দক্ষিণ চট্টগ্রামের যাত্রীসাধারণ। 

গত একদশকে রেল লাইন, সেতু, রেল গেইট ও স্টেশন নির্মাণের মধ্য দিয়ে নতুন রূপ দেওয়া হয় এ রেলপথকে। চট্টগ্রামবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ৩ নভেম্বর আরো একজোড়া রেল যুক্ত করা হয়। ফলে দুই জোড়া রেল সকাল-বিকেল এ পথে চলাচল শুরু করলে রেলমুখী হয় দক্ষিণ চট্টগ্রামের যাত্রীরা। 

বোয়ালখালী উপজেলা সদরের বাসিন্দা মো. আজিজুর রহমান বলেন, সড়ক পথে নগর যাতায়াত খুবই কষ্টকর। বোয়ালখালী নগরের কাছের উপজেলা হলেও কালুরঘাট সেতুতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা জ্যামে আটকা পড়তে হয় ও বোয়ালখালীতে গত দুই দশক ধরে বাস সার্ভিস বন্ধ । এসব ঝক্কি ঝামেলা এড়িয়ে সময় ও অর্থ বাঁচাতে রেলে যাতায়াত নিরাপদ। এ সময় পাশে থাকা আরেক যাত্রী আকুবদন্ডী গ্রামের সাগর নাথ বলেন, যানজটমুক্ত ও কম খরচে নিরাপদ যাতায়াত ব্যবস্থা হচ্ছে রেল। এ রুটে যদি আর এক জোড়া ট্রেন চলাচল করতো, তাহলে সড়ক পথে চাপ কমতো এবং দুর্ঘটনাও অনেকাংশে হ্রাস পেতো। 

বগি বাড়ানোর দাবি জানিয়ে সরকারি চাকরিজীবী মো. আমজাদ হোসেন বলেন, প্রতিদিনই যাত্রী ভিড় থাকছে এ রেলপথে। বিশেষ করে সকালে নগরমুখী রেলে অনেক যাত্রীর ভিড় থাকে। এ সময় অনেকেই ট্রেনে উঠতেই পারে না। বগি কম থাকায় ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে যাত্রীদের।

গোমদন্ডি স্টেশন এলাকার আজম খান জানান, সকাল ও সন্ধ্যায় প্রচুর যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে ৪টি রেল। কালুরঘাট সেতুর ভোগান্তি এড়াতে রেলমুখী হয়েছে বোয়ালখালীর মানুষজন। সে অনুযায়ী যদি সেবাও বাড়ানো হয় তবে সরকারি রাজস্ব আরো বাড়বে বলে তিনি মনে করেন।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম শহর থেকে দোহাজারী পর্যন্ত রয়েছে ১৭টি স্টেশন। এর মধ্যে রয়েছে কালুরঘাট সেতুর পর গোমদন্ডি, বেঙ্গুরা, ধলঘাট, খানমোহনা, পটিয়া, চক্রশালা, খরনা, কাঞ্চন নগর, হাশিমপুর, খাঁনহাট ও দোহাজারী স্টেশন। গোমদন্ডি স্টেশন থেকে দোহাজারী স্টেশন পর্যন্ত প্রতি যাত্রীর টিকিট মূল্য ৮ টাকা ও গোমদন্ডি স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম নগরে যাওয়ার টিকিট মূল্য ৬ টাকা।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, এ রেলপথের ১৭টি স্টেশনের মধ্যে গোমদন্ডি রেলওয়ে স্টেশনে গত বছরের অক্টোবর মাসে সাড়ে ১৬ হাজার টাকার টিকিট বিক্রি হয়েছে, যাত্রী ছিলেন ৩ হাজার ১শত ৫৭ জন। দুই জোড়া রেল চালুর পর নভেম্বর মাসে টিকিট বিক্রি হয়েছে ২৭ হাজার ৯শত ১৫ টাকার ও যাত্রী ছিলেন ৫হাজার ৯৭ জন। ডিসেম্বর মাসে টিকিট বিক্রি হয়েছে ৪৩ হাজার ৬শত ৫৮ টাকা,  যাত্রী ছিলেন ৭হাজার ৮ শত ২১ জন। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত টিকিট বিক্রি হয়েছে ২ লক্ষ ১৩ হাজার ১শত ২৩ টাকার ও যাত্রী ছিলেন ৩৬ হাজার ৫৭ জন। 

গোমদন্ডি রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, আগের তুলনায় এ স্টেশনে যাত্রী বেড়েছে দ্বিগুণ। রেলযাত্রীরা এখন অনেক সচেতন। নিজে তো রেলের টিকিট কাটেনই পাশাপাশি অন্যযাত্রীও টিকিট নিয়েছেন কি না জানতে চান যাত্রীরা।

তিনি আরো বলেন,  আপ-ডাউন রেলে ৫টি বগি নিয়মিত আসা যাওয়া করছে। যাত্রীদের কথা বিবেচনা নিয়ে আরো দুইটি বগি বাড়ানো হলে উপকৃত হতো যাত্রীরা।

সিভয়েস/আই

আরও পড়ুন

মেয়াদোত্তীর্ণের নয় মাস পরও পূর্ণাঙ্গ হয়নি দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি

মেয়াদোত্তীর্ণের ৯ মাস পেরিয়ে গেলেও পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেনি বিস্তারিত

একটি সেতু হলেই দু:খ ঘুছাবে দশ গ্রামের মানুষের

একটি সেতুর দাবি এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের। আর এ সেতুটি  হলেই যাতায়াতের দুঃখ বিস্তারিত

জামালখানে নির্মিত হচ্ছে দেশের প্রথম স্ট্রিট অ্যাকুরিয়াম

আদিম কাল থেকেই মানব সমাজ মাছকে খাদ্য উপকরণের পাশাপাশি সৌন্দর্য প্রিয় বিস্তারিত

জলাবদ্ধতা রেখেই ছালামের ‘মৃত্যু’, এ ভোগান্তির শেষ কোথায়?

অল্প বৃষ্টি বা জোয়ারে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতার সমস্যা অনেক বিস্তারিত

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মাথা গোঁজার ঠাঁই গড়ে দিচ্ছেন মেয়র নাছির

অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের জন্য বাড়ি নির্মাণ করে দিচ্ছে চট্টগ্রাম বিস্তারিত

এবার নতুন রূপে সাজবে বহু ইতিহাসের সাক্ষি “লালদিঘী ময়দান”   

চট্টগ্রাম নগরীর ঐতিহাসিক লালদিঘী ময়দান এই বাংলার ইতিহাসের সাথে বিস্তারিত

চট্টগ্রামে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বাতিলের আন্দোলন, ভ্রুক্ষেপ নেই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি বাতিলের দাবিতে দলের বিস্তারিত

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি এক তৃতীয়াংশ পরীক্ষার্থী

চতুর্থ ও শেষ ধাপের প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে বিস্তারিত

কর্ণফুলী টানেলে ৯৮টি রিং স্থাপন, ১৯৪ মিটার খনন সম্পন্ন

কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে পুরোদমে চলছে টানেল নির্মাণের কাজ। দু’পাশের কাজ বিস্তারিত

সর্বশেষ

প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার দুই মামলা 

রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক বিস্তারিত

ভ্রাম্যমাণ আদালত : ফিশারিঘাটে পিরানহা, জেলিযুক্ত চিংড়ি জব্দ

ফিরাশিঘাটে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে তিন মণ নিষিদ্ধ পিরানহা, আফ্রিকান বিস্তারিত

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইয়াবা কারবারি নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মো. হোছেন (৩৯) নামে এক বিস্তারিত

প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির সমাবর্তন শুরু, ডিগ্রি দেয়া হবে ১,১১২ জনকে 

প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির দ্বিতীয় সমাবর্তন অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে।  রোববার বিস্তারিত

সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত, এই ওয়েব সাইটের যেকোন লিখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনি

close