image

আজ, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯ ,


কারচুপি-জারদৌসির বুননে ব্যস্ত বিহারী পল্লীর বুটিক শিল্পীরা

কারচুপি-জারদৌসির বুননে ব্যস্ত বিহারী পল্লীর বুটিক শিল্পীরা

ছবি: মিনহাজ জন্টু

ঈদ উপলক্ষে প্রাণ ফিরেছে চট্টগ্রামের ঝাউতলা বিহারী পল্লীর বুটিকস হাউসগুলোতে। একসময় এখানকার কারচুপি-জারদৌসির বুনন শিল্পীদের সারাদিনই ব্যস্ত থাকতে হতো কাজে। এখন আর সেই সময় নেই। বলতে গেলে একেবারেই ঝিমিয়ে গেছে এখানকার বুটিকস ব্যবসা। বছরজুড়ে এখন অনেকটা নিষ্প্রাণ সময় যায় এই বুটিকস হাউসগুলোর। কিন্তু ঈদ আসলে বদলে যায় এখানকার চিত্র। ঈদের পোশাক তৈরিতে দারুণ কর্মব্যস্ততা শুরু হয় ঝাউতলার কারচুপি-জারদৌসির পল্লীতে।

এখানকার কারিগররা ফুল, পাখি, আল্পনা এঁকে মানানসই নকশা তৈরি করেন। তাদের ব্যবহার করা বিভিন্ন ডিজাইনের মধ্যে বহুল প্রচলিত দুটি ডিজাইন হচ্ছে, কারচুপি ও জারদৌসি। এছাড়া কাস্টমাররা নিজেদের পছন্দের image ডিজাইনও দেন মাঝে মাঝে। প্রতিটা ক্ষেত্রে কাজ ভেদে ৫০০ থেকে শুরু করে ৫০০০০ পর্যন্ত পারিশ্রমিক নেন তারা। 

অন্যান্য সময় কাজ না থাকলেও ঈদে গ্রাহকদের চাহিদা মেটাতে সকাল ১০টা থেকে ভোর ৩টা পর্যন্ত একটানা কাজ করছেন এখানকার কর্মীরা। পুতি, জড়ি, স্প্রিং, চুমকি ও দাপকার অপূর্ব কারুকাজে  বুটিকস হাউসগুলোতে চলছে থ্রি-পিস, লেহেঙ্গা, শাড়ি আর পাঞ্জাবী তৈরির কাজ। জর্জেট, শিফন, টিস্যু, সিল্ক ও বেলব্রেট কাপড়ের উপর সুই সুতার সাহায্যে জারদৌসি-কারচুপি কাজের মোহনীয় নকশা ফুটিয়ে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

তবে এই ব্যস্ততা কেবল ঈদকে কেন্দ্র করে। ঈদ শেষে আবার নেমে আসবে কাজ না থাকার হতাশা। এ অবস্থার জন্য এখানকার কারিগররা দুষছেন ভারত থেকে রেডিমেট পোশাক আমদানিকে। 

ঝাউতলা স্টেশন রোডে পাপ্পু বুটিকস হাউসে গিয়ে দেখা যায় চারজন কারিগর মিলে পোশাক তৈরির কাজ করছেন। কেউ কাপড় কেটে দিচ্ছেন, কেউ সেই কাপড়ে নকশা আঁকছেন। কেউ সে নকশার উপর পুতি স্প্রীং বসাচ্ছেন। এভাবে সকাল ১০টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত কাজ করেন তারা। 

বুটিকসের মালিক পাপ্পু জানান ২২ বছর ধরে এই কাজের সাথে সম্পৃক্ত তিনি। গত ১২ বছর ধরে নিজের প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন। একসময় খুব ভাল চাহিদা ছিল এই কাজের। এখন বলতে গেলে অস্তিত্বের সাথে লড়াই করছেন তারা। তিনি বলেন, ঈদে কিছু কাজ পাই। অন্য সময়তো কাজই থাকে না। তবে এর মানে এই নয় যে মানুষ বুটিকসের কাজ করাচ্ছে না। মানুষ ঠিকই কাজ করাচ্ছে। কাজগুলো চলে গেছে বড় ব্যবসায়ীদের হাতে। 

তিনি বলেন একসময় পুরো একটা ফ্ল্যাট নিয়ে ২০ জন কারিগর দিয়ে কাজ করা হতো তার বুটিকস হাউসে। সেখানে এখন একটি ছোট রুমে ৪ জন কারিগর কাজ করছে। ভারতীয় রেডিমেট পোশাক আমদানি বাড়ার কারণে তাদের এ দুর্দশা বলে মন্তব্য পাপ্পুর। 

মেহজাবিন্স শপে গিয়ে দেখা যায়, সিল্কের কাপড়ে স্প্রীং বসানোর কাজ করছেন সোহেল নামে এক কর্মী। ক্যামেরা দেখে কিছুটা নড়েচড়ে বসে সে। অনুযোগের সুরে বলে , আপনারা প্রতি বছর এসে ছবি তুলে নিয়ে যান। আমাদের কাজতো বাড়ছে না, বরং প্রতি বছরই কমছে। লিখেন কী আপনারা। এক নাগাড়ে এসব বলে একগাল হেসে সে আবার বলে, আসলে ভাই মূল সমস্যা ঐ ইন্ডিয়ান রেড়িমেট কাপড়। তারা মেশিনের সাহায্যে কাজ করে। যে কাজ তারা এক ঘণ্টায় করে সেই কাজ করতে আমাদের সময় লাগে ১৫ দিন। ফলে তারা যেটা ১৫০০ টাকায় গ্রাহকের হাতে তুলে দিচ্ছে তা আমাদের কাছ থেকে করাতে গেলে তিন থেকে চার হাজার টাকা লাগে। 

তবে দামের যেমন পার্থক্য আছে গুণগত মানেও তেমন পার্থক্য আছে, এমনটাই দাবি সোহেলের। সোহেল বলেন ওদের কাজগুলো টেকসই না। আমরা যে কাজ করি সেগুলো অনেক টেকসই আর কাজও নিখুঁত। 

সোহেল বলেন, এখন কিছু কাজ আছে হাতে। কিন্তু ঈদ শেষ হওয়ার পর আবার কোরবান পর্যন্ত বসে থাকতে হবে। একসময় আমরা বেশ ভালোই ছিলাম পরিবার পরিজন নিয়ে। এখন যা আয় করি তা দিয়ে নিজে চলাও দায়। এসব কারণে এ এলাকায় বুটিকস হাউসের সংখ্যা কমে গেছে। অনেকেই ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে। যারা করছেন তারাও লোক কমিয়ে ফেলেছে। এভাবে চলতে থাকলে এই শিল্পটা ক্রমান্বয়ে হারিয়ে যাবে। আর অনেক মানুষ বেকার হবে।

মেহজাবিন্স শপের আরেক কারিগর সুমন বলেন, এক সময় নিউ মার্কেট, মিমি সুপার মার্কেট, আফমি প্লাজা, লাকী প্লাজা, আমিন সেন্টারসহ বড় বড় মার্কেটের শোরুম গুলো এখান থেকে শাড়ি, জামা ,লেহেঙ্গা, থ্রি-পিস বানিয়ে নিতো। ফলে সারা বছরই কাজ থাকতো তাদের। কিন্তু ইন্ডিয়ান পণ্য বাজারে ঢুকার পর থেকে এখন আর এসব মার্কেট থেকে কাজের অর্ডার পান না তারা। 

এই শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারকে উদ্যোগী হতে হবে বলে দাবি এখানকার কারচুপি-জারদৌসির কারিগরদের। তারা বলেন, ভারতীয় পণ্য বাজারে প্রবেশে কড়াকড়ি নীতিমালা করা উচিত সরকারের। এটা না করতে পারলে শুধু আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হবো না, দেশেরও ক্ষতি হবে। 

একদিকে যেমন আমাদের বিশাল একটা বাজার ভারতের দখলে চলে যাচ্ছে অন্যদিকে  কর্মসংস্থানও সংকুচিত হচ্ছে। এছাড়া এই ঐতিহ্যবাহী শিল্পটা হারিয়ে যাওয়ার ক্ষতিতো আছেই। এই শিল্পকে বাঁচাতে তাই সরকারসহ সংম্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি ও আনুকূল্য দাবি করছেন এখানকার বুটিকস হাউসের মালিকরা।

-সিভয়েস/এআরটি/আই

আরও পড়ুন

বেপরোয়া ট্রাক চালকের ভুয়া লাইসেন্স!

নগরীর টাইগারপাস মোড় থেকে ধাওয়া দিয়ে একটি দ্রুত গতির ট্রাক ও চালককে আটক বিস্তারিত

মেঝেতে ফলের দানা ফেলায় চিকিৎসা পায়নি শিশু!

শিশুর বয়স এক বছরও পূর্ণ হয়নি। হামাগুঁড়ি দেয় এখনো। ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বিস্তারিত

`খালেদা জিয়াকে জেল থেকে বের করার কোন উদ্যোগ নেই’

বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। তিনিই একমাত্র নেত্রী বিস্তারিত

দেশে এখন আইনী সন্ত্রাস চলছে: আমির খসরু

দেশের মানুষ ভালো নেই। সরকারের অন্যায়, অত্যাচার, জুলুমের বিরুদ্ধে সোচ্চার বিস্তারিত

পাখির জন্য ঘর বানাচ্ছেন হাজারী

নগরীর কোতোয়ালী থানা এলাকায় পাখিদের অভয়াশ্রম হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। গাছে বিস্তারিত

সন্দ্বীপে বজ্রপাতে যুবকের মৃত্যু

সন্দ্বীপে বজ্রপাতে এক যুবকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বুধবার দুপুরে বিস্তারিত

সানমারে জমজমাট বিকিকিনি

নগরীর অভিজাত বিপনী বিতান সানমার সেজেছে নবরূপে। নানারকম আলো ঝলমলে বাতি আর বিস্তারিত

ঈদের আগে এক্সেস ও পিসি রোডের একপাশ কার্পেটিংয়ের প্রতিশ্রুতি মেয়রের

আসন্ন ঈদের আগেই আগ্রাবাদ এক্সেস রোড ও পোর্ট কানেকটিং রোডের একপাশের বিস্তারিত

চট্টগ্রামে ট্রেনের টিকেট বিক্রির প্রথম দিনেই সার্ভার বিকল!

ঈদে ঘরমুখো মানুষের জন্য বুধবার (২২ মে) থেকে চট্টগ্রামে শুরু হয়েছে ট্রেনের বিস্তারিত

সর্বশেষ

প্রেম’স কালেকশনে এক্সক্লুসিভ প্রদর্শনী নিয়ে ফ্যাশন শো

নগরীর জিইসি মোড়ে অবস্থিত ইউনুস্কো সেন্টারের ষষ্ঠ তলায় আসন্ন ঈদকে ঘিরে বিস্তারিত

বেপরোয়া ট্রাক চালকের ভুয়া লাইসেন্স!

নগরীর টাইগারপাস মোড় থেকে ধাওয়া দিয়ে একটি দ্রুত গতির ট্রাক ও চালককে আটক বিস্তারিত

মেঝেতে ফলের দানা ফেলায় চিকিৎসা পায়নি শিশু!

শিশুর বয়স এক বছরও পূর্ণ হয়নি। হামাগুঁড়ি দেয় এখনো। ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বিস্তারিত

রুমায় ভাল্লুকের আক্রমণে আহত ১

রুমায় ভাল্লুকের আক্রমণে আহত ১

বান্দরবান প্রতিনিধি

জঙ্গলে সবজি  সংগ্রহ করতে গিয়ে মা ভাল্লুকের আক্রমণে গুরুতর আহত হয়েছে বিস্তারিত

সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত, এই ওয়েব সাইটের যেকোন লিখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনি

close