image

আজ, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯ ,


গ্যাসের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আতঙ্কের কারণ নেই: বিইআরসি চেয়ারম্যান

গ্যাসের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আতঙ্কের কারণ নেই: বিইআরসি চেয়ারম্যান

গ্যাসের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। গ্যাস বিতরণ কোম্পানি যা- প্রস্তাব করুক না কেন যৌক্তিক পর্যায়ে বিবেচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ এনার্জি image style="font-family:"Nirmala UI","sans-serif"">রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) বিইআরসিতে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির আবেদনের ওপর শুনানিতে শেষে তিনি মন্তব্য করেন।

বিইআরসি চেয়ারম্যান বলেন, আপনারা যদি অতীতের দিকে তাকান তবে দেখবেন কোম্পানি যাই বলুক যৌক্তিক পর্যায়ে দাম বাড়ানো হয়েছে। ২০১৭ সালে ৯৫ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছিল, বিইআরসি ১১ শতাংশ বাড়িয়েছিল। ২০১৮ সালে ৭৫ শতাংশ দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের বিপরীতে কোনো দাম বাড়ানো হয়নি।

তিনি বলেনআমি বিতরণ কোম্পানিগুলোকে অনুরোধ করব যেন সঠিক পরিমাণে প্রস্তাব করে। কথায় আছে এলএমজি চাইলে কমপক্ষে পিস্তল তো পাওয়া যাবে এমন ভাবার কোনো কারণ নেই।

বিইআরসি চেয়ারম্যান বলেন, আমরা সবার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেছি। নোটও করা হয়েছে। কমিশন পুরোপুরি স্বাধীন। সম্পূর্ণ নিরপেক্ষভাবে বিচার-বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত জানাবে। তবে আমরা কখনও কাউকে সন্তুষ্ট করতে পারিনি। দাম বাড়লে স্বাভাবিকভাবে ভোক্তাদের ওপর চাপ বেড়ে যায়। সে কারণে তারা স্বাভাবিক কারণেই অসন্তুষ্ট হন। গণশুনানিতে অনেকগুলো সুপারিশ এসেছে। সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে বলব বিষয়টি দেখার জন্য।

স্থানীয় পর্যায়ে গিয়ে গণশুনানি করার প্রস্তাব এসেছে বিইআরসি বিবেচনা করবে বলে জানান চেয়ারম্যান।

জ্বালানি বিভাগের যুগ্ম সচিব জহির রায়হান বলেন, বিইআরসিকে অনেক কিছু বিবেচনা করতে হবে। একদিকে যেমন ভোক্তা না থাকলে কোম্পানির কোনো দাম নেই, তেমনি কোম্পানি না থাকলে ভোক্তা সেবা পাবেন না। দুইপক্ষকেই বাঁচাতে হবে।

গ্যাসের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে ১১ মার্চ গণশুনানি শুরু হয়। প্রথম দিনে গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানির হুইলিং চার্জ বৃদ্ধির আবেদনের ওপর শুনানি নেওয়া হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে ছয়টি বিতরণ কোম্পানি পক্ষ থেকে দাম বৃদ্ধির ওপর গণশুনানি হয়। প্রত্যেকে ১০২ শতাংশ হারে দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। প্রধান কারণ দেখানো হয়, চড়া দরে এলএনজি আমদানির কথা। তবে ভোক্তাদের পক্ষ থেকে তীব্র বিরোধিতা করা হয়।

গণশুনানিতে অংশ নিয়ে ভোক্তারা বিশেষ ক্ষমতা আইন বন্ধ, বাপেক্সকে শক্তিশালী করা, দেশীয় গ্যাস উত্তোলন কার্যক্রম জোরদার করার প্রস্তাব দেন।

এদিকে, কর্ণফুলী পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস বিতরণ কোম্পানি তাদের প্রস্তাবে আবাসিকে এক চুলা বর্তমান দর ৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৩৫০ টাকা, দুই চুলা ৮০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৪৪০ টাকা এবং প্রি-পেইড মিটারে দশমিক ১০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৬ দশমিক ৪১ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে।

অন্যদিকে বিদ্যুতে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম তিন দশমিক ১৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে দশমিক ৭৪ টাকা, সিএনজিতে ৩২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪৮ দশমিক ১০ টাকা, সার উৎপাদনে প্রতি ঘনমিটার দুই দশমিক ৭১ টাকা থেকে বাড়িয়ে আট দশমিক ৪৪ টাকা, ক্যাপটিভ পাওয়ারে দশমিক ৬২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৮ দশমিক শূন্য টাকা, শিল্পে সাত দশমিক ৭৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৪ দশমিক শূন্য পাঁচ টাকা এবং বাণিজ্যিকে ১৭ দশমিক শূন্য চার টাকার পরিবর্তে ২৪ দশমিক শূন্য পাঁচ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। একই সঙ্গে তারা বিতরণ চার্জ নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে।

বিষয়ে পশ্চিমাঞ্চলের পক্ষ থেকে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, বর্তমান প্রস্তাবনা অনুযায়ী গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাড়ানো হলে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১৮৭ দশমিক ৬৪ মিলিয়ন এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৩৪৮ দশমিক ৩০ মিলিয়ন টাকা অতিরিক্ত উৎসে আয়কর কাটা হবে। জন্য ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে রাজস্ব চাহিদা হবে যথাক্রমে এক হাজার ১৮১ দশমিক ৬৭ মিলিয়ন টাকা এবং এক হাজার ৩৫৩ দশমিক ৯৯ মিলিয়ন টাকা। এরই পরিপ্রেক্ষিতে যৌক্তিকভাবে ভারিত গড়ে প্রতি ঘনমিটারে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে দশমিক ০৬৪ টাকা এবং জুন থেকে শূন্য দশমিক ৯৭৩ টাকা বিতরণ চার্জ নির্ধারণ করা প্রয়োজন।

সুন্দরবন গ্যাস বিতরণ কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক খায়েজ আহমদ মজুমদার বলেন, কোম্পানির পক্ষ থেকে এলএনজি আমদানির কারণে গ্রাহক পর্যায়ে ৪০ দশমিক ২৫ ভাগ থেকে বাড়িয়ে ২১১ ভাগ করার প্রস্তাব করা হচ্ছে। একইসঙ্গে বিতরণ চার্জ শূন্য দশমিক ২৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য প্রতি ঘনমিটারে দশমিক ০৬ টাকা এবং শূন্য ৭৭ টাকা করার প্রস্তাব করা হচ্ছে।

এদিকে পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি কর্ণফুলী গ্যাস কোম্পানির দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের বিষয়ে মূল্যায়ন কমিটির পক্ষ থেকে মো. কামরুজ্জামান জানান, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রতিদিন গড়ে ৩২০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি বিবেচনায় গ্যাসের গড় সরবরাহ ব্যয় দাঁড়ায় প্রতি ঘনমিটার টাকা ৯২ পয়সা। অন্যদিকে প্রতিদিন গড়ে ৬৫০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ বিবেচনায় গ্যাসের সরবরাহ ব্যয় দাঁড়ায় প্রতি ঘনমিটারে ১১ টাকা ৭৭ পয়সা। অন্যদিকে ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রতিদিন গড়ে ৮০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ বিবেচনায় গ্যাসের গড় সরবরাহ ব্যয় প্রতিঘনমিটারে ১২ টাকা ৪৩ পয়সা হবে।

আরও পড়ুন

ডাকসু’তে প্রধানমন্ত্রীর আজীবন সদস্য পদ নিয়ে ভিপি নুরের বিরোধিতা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নির্বাচন বিতর্কিত হওয়ায় বিস্তারিত

জিএম কাদেরকে অব্যাহতি দিলেন এরশাদ

জি এম কাদের দলে বিভেদ সৃষ্টি ও দল পরিচালনায় ব্যর্থ হওয়ায় জাতীয় পার্টির বিস্তারিত

ডাকসু’র দায়িত্ব গ্রহণ করলেন নবনির্বাচিতরা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ- ডাকসু'র দায়িত্ব নিল বিস্তারিত

বিমানবন্দরে অস্ত্র নিয়ে প্রবেশ করায় আ’লীগ নেতা আটক

পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ বিস্তারিত

ঐক্যফ্রন্টের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা

তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। এর মধ্যে পুনরায় জাতীয় বিস্তারিত

ওবায়দুল কাদের শঙ্কামুক্ত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিস্তারিত

শনিবার দায়িত্ব নেবেন ডাকসু ভিপি নুর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন বিস্তারিত

পদ্মা সেতুতে বসানো হয়েছে নবম স্প্যান

পদ্মা সেতুতে নবম স্প্যান বসানো হয়েছে। জাজিরা প্রান্তের ৩৫ ও ৩৪ নম্বর বিস্তারিত

বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পাড়ি দিলেন ৩৪ নারী-পুরুষ

বঙ্গোপসাগরে বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পাড়ি দিলেন ৩৪ নারী-পুরুষ। ১৪তম ফরচুন বিস্তারিত

সর্বশেষ

মাদক ব্যবসায় বাধা, ছুরিকাঘাতে আহত ২

নগরীর চকবাজার ডি.সি রোড মরিয়ম বিল্ডিং এলাকায় মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় বিস্তারিত

বেপারি পাড়ায় ছুরিকাঘাতে যুবক আহত

নগরীর ডবলমুরিং হাজী পাড়ার আলম হোটেলের সামনে ছুরির আঘাতে আমীর হোসের (২০) বিস্তারিত

ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে পোকখালীর বেইলি ব্রিজ

ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে পোকখালীর বেইলি ব্রিজ

ঈদগাঁও ( কক্সবাজার) প্রতিনিধি

কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নে গোমাতলী বেইলি ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ বিস্তারিত

সচেতনতা বাড়াতে বাণিজ্য মেলায় পুলিশের স্টল

পলোগ্রাউন্ড মাঠে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় সেবা স্টল পরিচালনা করছে বিস্তারিত

সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত, এই ওয়েব সাইটের যেকোন লিখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনি

close