image

আজ, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ ,


আড়াই কোটি তরুণ ভোটার নির্ধারণ করবে আগামীর সরকার!

আড়াই কোটি তরুণ ভোটার নির্ধারণ করবে আগামীর সরকার!

চারিদিকে জোট-ভোট। সন্নিকটে ক্ষমতার অদল-বদল। নানা হিসাব-নিকাশ। চলছে আলাপ-সংলাপ। কারো ক্ষমতা ধরে রাখার স্পৃহা, কারো ক্ষমতায় যাওয়ার আকাঙ্খা। এতসব জল্পনা-কল্পণার মধ্যে, তবে কি ভাবছে তারুণ্য? কি ভাবছে আড়াই কোটি তরুণ ভোটার? কোন দিকে যাচ্ছে দেশ? এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজলে, প্রয়োজনীয় হয়ে উঠে ভোটের সমীকরণ। সেই সমীকরণও দিবালোকের মত স্পষ্ট। ক্ষমতাধর দুই শিবিরে বিভক্ত দুই রাজনৈতিক সংগঠনের ভোট-জোটে ফ্যাক্টর হয়ে উঠবে ১৮-২৮ বছর বয়সী আড়াই কোটি তরুণ ভোটার।

বলতে গেলে, তাদের হাতেই ক্ষমতার চাবিকাঠী। আগামীর সরকার নির্ধারণ করবে আড়াই কোটি তারুণ্য। ভাবনাটি আমার একান্ত নয়, বিষয়টি নিয়ে image ভাবতে শুরু করেছেন রাজনৈতিক বোদ্ধারাও। ভাবনাটি আরো জোরালো করলো, গত কয়েকমাস আগের ছাত্র আন্দোলন। সেই আন্দোলনে তারুণ্যের স্ফুলিঙ্গ, জাগ্রত করেছে ঘুণেধরা রাজনৈতিক বিবেককে। দেখিয়ে দিয়েছে তারুণ্যের শক্তি ও সম্ভাবনা। স্পষ্টত প্রমাণ করেছে, তারাই দিন বদেলের হাতিয়ার। এবার আসা যাক সমীকরণটা কি? গত ১০ বছরে ১৮ থেকে ২৮ বছর বয়সের ভোটার তালিকাভুক্ত হয়েছেন ২ কোটি ৩০ লাখ।

এরমধ্যে কিছু দিন আগে হালনাগাদ ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন আরো প্রায় ২০ লাখ তরুণ ভোটার। দেশের একটি জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালে নবম সংসদ নির্বাচনের পর থেকে এখন পর্যন্ত গত ১০ বছরে প্রতি বছর গড়ে ২৫ লাখের মতো ভোটার অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন তালিকায়। এই সময়ে ভোটার বেড়েছে ২ কোটি ৩০ লাখ ৫৫ হাজার ৩৭৮ জন। এর মধ্যে ১ কোটি ২১ লাখ ৭৭ হাজার ২১৪ ভোটার আগে কখনোই জাতীয় নির্বাচনে ভোট দেয়নি। তারা একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রথম ভোট দেবেন। গত ১০ বছরের নতুন ভোটারদের মধ্যে ১৮ বছরের ভোটার রয়েছেন ৪৬ লাখ, ১৯ ও ২০ বছরের ২৭ লাখ, ২১ ও ২২ বছরের ৩৭ লাখ, ২৩ ও ২৪ বছরের ৭০ লাখ, ২৬ বছর বয়সের ভোটার রয়েছেন ৪৭ লাখ। এরমধ্যে আরো অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন ২০ লাখ তরুণ ভোটার। অপর এক বিশ্লেষণে দেখা যায়, নবম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পেয়েছিল ৩ কোটি ৩৬ লাখ ৩৪ হাজার ৬২৯ ভোট।

আর বিএনপি পেয়েছিল ২ কোটি ২৭ লাখ ৫৭ হাজার ১০০ ভোট। আর অষ্টম সংসদ নির্বাচনে বিএনপি পেয়েছিল ২ কোটি ২৮ লাখ ৩৩ হাজার ৯৭৮ ভোট। আর আওয়ামী লীগ পেয়েছিল ২ কোটি ২৩ লাখ ৬৫ হাজার ৫১৬ ভোট। সেই হিসেবে নবম থেকে ২০১৮ পর্যন্ত ভোটার তালিকায় যুক্ত হওয়া তরুণ ভোটাররাই ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভোটার হালনাগাদের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, দেশে ভোটার সংখ্যা এখন ১০ কোটি ৪১ লাখ ৪২ হাজার ৩৮১ জন। শুধু এবার ২০১৮ সালে ভোটার তালিকায় যুক্ত হয়েছেন ৪৬ লাখ ৫৫ হাজার ৫৪৫ জন নতুন ভোটার। ২০১৭ সালে ভোটার বেড়েছে ১১ লাখ ৪৪ হাজার, ২০১৫ সালে ভোটার বেড়েছে ১৬ লাখ ৮ হাজার, ২০১৪ সালে ভোটার বেড়েছে ১৯ লাখ ৬৮ হাজার, ২০১৩ সালে ভোটার বেড়েছে ১৮ লাখ ৩০ হাজার, ২০১২-২০১৩ সালে ভোটার বেড়েছে ৭০ লাখ ৭৯ হাজার এবং ২০০৯-২০১০ সালে ভোটার বেড়েছে ৪৭ লাখ ৭৫ হাজার। এখন কথা হচ্ছে কি চাই তারুণ্য? মুক্তিযু্দ্ধের চেতনার একটি দেশ। নাকি ধর্মীয় অনুশাসনের স্বদেশ। নাকি জাতীয়তাবাদী চেতনার পুনরুজ্জীবন। নাকি আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলা, কোন আধুনিক রাষ্ট্র বিনির্মাণ। এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গেলে, হিসেব মেলানো বড় দায়। কারণ বড় দু'টি দলই এখন তাদের স্বরূপ পরিবর্তন করেছেন। নিজস্ব কোন চেতনা নয়, ক্ষমতাই হচ্ছে নিজস্ব চেতনা, আদর্শ। এমনটি দেখা যাচ্ছে ভোট-জোটের সমীকরণে। ফলে দিকভ্রান্ত তরুণ ভোটাররা। কোন দিকে যাবে তাদের সমর্থন। এ নিয়ে চরম ধোঁয়াশা। জগা-খিচুড়ির মতো আদর্শচ্যুতির জোট-ভোটের হিসেবে এখনো অন্ধকারে তারুণ্য। তবে আশার কথা হচ্ছে, দুই শিবিরেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সুর। ব্যাকফুটে আছে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি। তাই তারুণ্যের চোখ এখন সেই দিকে, যেই দিকে স্বাধীনতা বিরোধীদের অদৃশ্য পদচারণা নেই। দৃশ্যমান পদচারণা তো কোন প্রকারই গ্রহণযোগ্য নই, এ সময়ের তারুণ্যের কাছে। অবশ্যই সেই হিসেবও মিলাচ্ছে দুই জোট। এখন ডিজিটাল, এনালগ, দিনবদল সব বুঝে তারুণ্য। তাদের হাতের মুঠোই এখন পুরো পৃথিবী। তারা বুঝে গেছে, দেশ এখন সমৃদ্ধির পথে। এখনইসময়, দেশ বিরোধীদের নিশ্চিহ্ন করার। উচ্ছিষ্ট উপড়ে ফেলার। তবে এতসব আশার সঞ্চারের মাঝে, নিরাশাও কিছু রয়েছে তারুণ্যকে ঘিরে।

এখনো দেশে রয়েছে হাজারো বখে যাওয়া তারুণ্য। বিপথগামী হাজারো তরুণ সমাজ। তাদেরকে মুক্ত করে আনতে হবে। তাদের বুঝাতে হবে, ধর্মের নামে জঙ্গীবাদ চলে না, ধর্মের নামে ধোঁকাবাজী ঠিক না, মানুষ হত্যায় ধর্মের সমর্থন নেই, সঠিক ইসলামী জিহাদ না করে ইসলামের নাম দিয়ে ক্ষমতায় যেতে রগ কাটা কোন রকমই মেনে নেয়া যায় না।

তরুণ্যের অভাব, দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে, ইসলামের নামে দেশ বিরোধী কার্যক্রম কখনো কারো কাম্য নয়। এ দায়িত্বটা নিতে হবে সুপথে থাকা যুব সমাজকে। বিপথগামীদের সুপথে ফিরিয়ে আনতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে, দেশের হাল ধরতে হবে তারুণ্যকেই। জয়তু তারুণ্য। জয়তু আগামীর বাংলাদেশ।

সিভয়েস/এইচআর/এএইচ

আরও পড়ুন

মানসম্পন্ন প্রাথমিক শিক্ষা এবং আমাদের করণীয়

একটি শিশু বড় হয়ে কেমন হবে, শিশুটি কি রকম চরিত্রবান হবে, সে কতটুকু জাতীয় চেতনা বিস্তারিত

তরুণদের রক্ষায় বাড়াতে হবে তামাকজাত দ্রব্যের দাম ও কর 

উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে তামাকের বাঘা বাঘা কোম্পানি যখন নিজেদের অস্তিত্ব বিস্তারিত

ধূমপান থেকে কি রক্ষা পাবে নারীরা!

‘সেদিন সুদূর নয়-যে দিন ধরণী পুরুষের সাথে গাহিবে নারীরও জয়।’ কবি কাজী বিস্তারিত

২৯ এপ্রিল: বিভীষিকার সেই রাত

একে একে পেরিয়ে গেছে ২৮ বছর। কিন্তু স্মৃতি থেকে মুছতে পারিনি বিভীষিকাময় সেই বিস্তারিত

আজ ২৫ মার্চ সেই গণহত্যার কালো রাত

১৯৭১ সালের এই দিনটি ছিল বৃহস্পতিবার। ৪৯ বছর আগে এদিন রাতেই জেনারেল ইয়াহিয়া বিস্তারিত

এ বীরের রক্তবীজ জাতিকে অনুপ্রাণিত করবে

চট্টগ্রাম বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের এক অপরিহার্য নাম। মহান বিস্তারিত

রোহিঙ্গা ইস্যু এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রসঙ্গ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সপ্তাহব্যাপী নিউইয়র্ক সফর নানা কর্মসূচিতে বিস্তারিত

এমন একটি দিনের অপেক্ষায় ছিলাম...

সাধারণ মানুষের চাহিদা অনুধাবন করে অসাধারণ মানুষরা অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করেন। বিস্তারিত

আগামী পৃথিবীর দায়

আট মাসের শিশু নিবিড়। এক কদম পা চলে না। মুখে তার কথার কদম ফোটেনি। চলতে পারে না বিস্তারিত

সর্বশেষ

নদার্ণ ওয়ারিয়ার্সের বিপক্ষে জয় পেয়েছে বাংলা টাইগার্স

টি টেন লীগে নর্দান ওয়ারিয়ার্সের বিপক্ষে ৬ রানের জয় পেয়েছে প্রথম খেলতে বিস্তারিত

বিজয় দিবসে ১৫০ মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা দিবে চসিক

আসন্ন বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে আরো ১৫০ জন গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধাকে বিস্তারিত

অগ্রগতির ধারা সমুন্নত রাখার দায়িত্ব সবার : ডিআইজি

চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বলেছেন, অপ্রতিরোধ্য বিস্তারিত

সন্দ্বীপে জঙ্গলে যুবকের হাত-পা বাঁধা লাশ

সন্দ্বীপের মগধরা এলাকার একটি জঙ্গল থেকে বুধবার (২০ নভেম্বর) দুপুরে হাত-পা বিস্তারিত

সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত, এই ওয়েব সাইটের যেকোন লিখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনি